আগস্ট ১১, ২০২০
১২:৩৮ অপরাহ্ণ

একাদশ শ্রেণীতে ভর্তি যুদ্ধে করনীয়

মকবুল হোসাইন

“স্বপ্ন সেটা নয় যেটা মানুষ ঘুমিয়ে দেখে,
স্বপ্ন সেটা যেটা মানুষকে ঘুমােতে দেয় না”

ডক্টর এ.পি.জে.আব্দুল কালামের এই বাণীতে আত্মবিশ্বাসী হয়ে তারুণ্যে উদ্দীপ্ত আত্মপ্রত্যয়ী শিক্ষার্থীরা জরাগ্রস্ত অতীতকে পেছনে ফেলে নবতর পৃথিবী তৈরির উন্মাদনায় হয়ে উঠে বিপ্লবী।তারা জয় করে সকল ভীতি আর পিছুটান।

গত ৩১ মে প্রকাশিত হয়েছে মাধ্যমিকের বহুল প্রত্যাশিত এসএসসি ও সমমানের ফলাফল। গত বছরের তুলনায় এইবার পাশের হার যেমন বৃদ্ধি পেয়েছে তেমনি জিপিএ-৫ ও এসেছে চােখে পড়ার মতাে। সর্বমােট নয়টি বোর্ডের মধ্যে এসএসসি তে পাশের হার ৮৩.৭৫ শতাংশ,মাদরাসা বোর্ডের দাখিলে ৮২.৫১ শতাংশ এবং কারিগরি বাের্ডে ৭১.৭১ শতাংশ।মােট জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার ৮৯৮ জন যা গত বছরের তুলনায় অনেক এগিয়ে।

সবারই স্বপ্ন থাকে ভালাে কলেজে ভর্তি হওয়ার। একজন শিক্ষার্থীর পরবর্তী জীবন এবং কর্ম জীবন নির্ভর করে এইচএসসির ফলাফল এবং শিখনের উপর। বলা হয়ে থাকে যে এই সময়টুকুই একজন শিক্ষার্থীর জীবনের টার্নিং পয়েন্ট। এই জন্য প্রতিটি শিক্ষার্থীদের জন্য এই সময়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই মুহূর্তে তাদেরকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।চলতি বছর একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থীরা শুধুমাত্র অনলাইনে আবেদনের সুযোগ পাচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের অগোচরে আবেদন করিয়ে নেয়া বন্ধ করতে চলতি বছর এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন প্রক্রিয়া বন্ধ করা হয়েছে। http://www.xiclassadmission.gov.bd/ এ ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। একজন সর্বোচ্চ ১০টি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে পারবেন। আবেদন ফি ১৫০ টাকা। এই ফি শিক্ষার্থীকে তার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার রোল নম্বর, বোর্ড, পাসের সাল উল্লেখ করে আবেদন করতে পারবেন।

বিভাগ পরিবর্তনের এক প্রকার প্রবণতাও দেখা যায় এই সময়ে। মূলত সাইন্স থেকে আর্টসে আসার হিড়িক লেগে যায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে। অনেকেই ভেবে পায়না তাদের কি করা উচিত!হেজিটেইশনে ভােগে। তবে এক্ষেত্রে আমার সাজেশন হচ্ছে তােমরা যারা এসএসসিতে আশানুরূপ রেজাল্ট করতে পারাে নি এবং বুয়েট ও মেডিক্যালের চিন্তা না করে বড় বড় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার লক্ষ্যে যারা সাইন্স থেকে বিভাগ পরিবর্তন করে মানবিকে আসবে তাদের জন্য এটা একটা পারফেক্ট সিদ্ধান্ত।

প্রায় দেড় মাস পর কলেজে ভর্তি হওয়ার ঘোষণা এসেছে এবং গত ৯ আগস্ট থেকে অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে এবং ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেদনের সুযোগ থাকবে।এই বছর একজন শিক্ষার্থী সর্বনিম্ন ৫ টি এবং সর্বোচ্চ দশটি কলেজে পছন্দক্রম অনুসারে ভর্তি আবেদন করতে পারবে।প্রথম দফায় কােনাে শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার সুযোগ না পেলে দ্বিতীয় দফায় এবং তৃতীয় দফায় সুযোগ থাকবে। অতএব তোমাদের সকলের জন্য শুভকামনা রইলো এবং তোমাদের কলেজের এই দুই বছর ফলপ্রসূ হােক এবং উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ তৈরির কারখানা হােক।

শেয়ার করুন

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *