জুলাই ১২, ২০২০
১১:৫১ অপরাহ্ণ

সোনাই নদীতে বেড়িবাঁধ না থাকায় সহস্রাধিক বাড়ি-ঘর পনির নিচে

আজকের খবর: সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়নের প্রায় সহস্রাধিক বাড়ি-ঘর অল্প বৃষ্টি বা পাহাড়ি ঢলে প্লাবিত হয়ে যায়। ৫ বছর আগেও এই বাড়িত-ঘরে বন্যাতো দূরে থাক জলাবদ্ধতাও সৃষ্টি হতো না।

পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ছনবাড়ী সোনাই নদীর উত্তর দিকে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত পিলার থেকে প্রায় ৩শত ফুট দক্ষিণে নদীর পূর্ব পাড়ের ৫ শত ফুট জায়গায় ভাঙ্গনের ফলে যে ঢালার (পানি যাতায়াতের রাস্তা) সৃষ্টি হয়েছে তা ছনবাড়ী, জালিয়ারপাড়, বাবুলনগর, চিকাডহর ও নারাইনপুর গ্রামের প্রায় ৩হাজার মানুষের জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। অল্প বৃষ্টি বা পাহাড়ি ঢল হলেই এই গ্রাম গুলো পানির নিচে তলিয়ে যায়। ভারত থেকে আসা পাহাড়ি ঢলের প্রবল স্রোতের কারণে সোনাই নদীর এই অংশটুকুতে ভাঙ্গন দেখা দেয়। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, মেম্বার ও স্থানীয়দের মাধ্যমে ২০১৭-১৮ সালে বেড়িবাঁধ দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু ভারতের বাঁধার কারণে তা আর সফলতার মুখ দেখেনি। প্রশাসনের কাছে ভুক্তভুগী এলাকার লোকজনের দাবি ভারতের সাথে আলোচনা করে দ্রুত এই বেড়িবাঁধটি নির্মাণ করার উদ্যোগ নেয়া হোক।
পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শাহ মোঃ জামাল উদ্দিন বলেন, ২০১৭-১৮ সালে দুইবার এখানে বাঁধ নির্মাণ করার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু ভারতের বিএসএফ বর্ডার সুরক্ষা আইনের মাধ্যমে আমাদের কাজ আটকিয়ে দেয়। তাই আর বাঁধ নির্মাণ করা সম্ভব হচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, যদি বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে নদী ভাঙ্গন প্রকল্পের আওতায় এনে এই বেড়িবাঁধটি নির্মাণ করা হয় তাহলে ওই এলাকার প্রায় তিন হাজার মানুষ আকস্মিক বন্যা থেকে রক্ষা পাবে।#

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুমন আচার্য জানান, এটা দুই দেশের বিষয়। ভারতের সাথে আলোচনা করে সমাধান করতে হবে। আমরা বন্যার পর এই বিষয়টি নিয়ে কি করা যায় দেখব।

শেয়ার করুন

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *