নিজস্ব প্রতিবেদক
জানুয়ারি ২, ২০২২
১:৫৬ পূর্বাহ্ণ
বিতর্কিত ইমাদ চেয়ারম্যান হয়েই মাথা ফাটালেন আওয়ামীলীগ নেতার

বিতর্কিত ইমাদ চেয়ারম্যান হয়েই মাথা ফাটালেন আওয়ামীলীগ নেতার

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে সেই আলোচিত নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন ইমাদের হামলায় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এক নেতা।

শনিবার (১ জানুয়ারি) সকালে উপজেলার বর্ণি উচ্চ বিদ্যালয়ে বই বিতরণ করতে গিয়ে এই ঘটনা ঘটান সাবেক শিবির নেতা হিসেবে আলোচিত দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইমাদ। শপথ গ্রহণের মাত্র ৫ দিনের মাথায় আওয়ামী লীগ নেতার মাথা ফাটালেন তিনি।

ইমাদের হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এখলাছ আলী। পরে এখলাছকে গ্রামবাসী উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

আহত এখলাছ আলীর মাথায় কয়েকটি আঘাত আছে বলে জানা গেছে।

এখলাছ আলীর পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করছেন, সাবেক শিবির নেতা ইমাদ আওয়ামী লীগে এসে চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার পর তাকে সমর্থন করেননি এখলাছ। এতে তার প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে আছেন ইমাদ। এর ক্ষিপ্ততা থেকেই হামলা করা হয়েছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার সকালে বর্ণি উচ্চ বিদ্যালয়ে বই বিতরণ করতে যান নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ইমাদ। সেখানে গিয়ে ইমাদ বর্ণি গ্রামের লোকজনের উদ্দেশে ইউনিয়ন নির্বাচনে তাকে ভোট না দেওয়াকে কেন্দ্র করে কটাক্ষ করে বক্তব্য দিতে শুরু করেন। এসময় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা এখলাছ আলী প্রতিবাদ করলে তার দিকে তেড়ে যান ইমাদ এবং হামলা করেন। এ সময় ইমাদ একটি তালা দিয়ে মাথায় আঘাত করলে সেখানেই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন এখলাছ। তৎক্ষণাৎ এলাকাবাসী তাঁকে উদ্ধার করে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। তবে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় এখলাছকে ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন ইমাদ সিলেটভিউ-কে বলেন, মারামারির ঘটনা সত্য। আপনারা নিউজ করলে করতে পারেন।

উল্লেখ্য, চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে গত ১১ অক্টোবর সিলেট বিভাগের চার জেলার ৪৪টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়নে ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হন আলোচিত ইমাদ। তিনি ৩ হাজার ৭২২ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মন্তাজ আলী পান ২৫০০ ভোট।

দ্বিতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচনে সিলেটের ইউনিয়নগুলোতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত করার পরপরই কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী নিয়ে সিলেটজুড়ে শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। অভিযোগ ওঠে- এ ইউনিয়নে কোম্পানীগঞ্জ থানা ছাত্র শিবিরের সাবেক তুখোড় নেতা ইকবাল হোসেন ইমাদকে নৌকার প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়। এ ক্ষেত্রে ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে ইকবাল ‘ম্যানেজ’ করে নৌকা প্রতীক বাগিয়ে নেন বলে দলটির বিভিন্ন পর্যায়ের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ অভিযোগ তুলেন।

এ বিষয়ে ১৪ অক্টোবর সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগের স্বপক্ষে বিস্তর প্রমাণ উপস্থাপন করেন দক্ষিণ রণিখাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতৃবৃন্দ। তবে শেষপর্যন্ত আর পরিবর্তন করা হয়নি নৌকার প্রার্থী এবং সকল আলোচনা-সমালোচনাকে পেছনে ফেলে ১১ নভেম্বর বৃহস্পতিবার নৌকায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ইমাদ।

এদিকে, চেয়ারম্যানে হিসেবে শপথ গ্রহণের মাত্র ৫ দিনের মাথায় আওয়ামী লীগ নেতার উপর হামলা করে বসার অভিযোগ ওঠেছে চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন ইমাদের বিরুদ্ধে।

শেয়ার করুন

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *